অনেক সময় হাসপাতাল বা ডাক্তারের চেম্বার নতুন হলে, রোগীর রোগ সম্পর্কে ভীতি থাকলে, রোগ নিয়ে বেশি দুশ্চিন্তা করলে ডাক্তারের চেম্বারে আসার পর রোগীর হৃদস্পন্দন ও রক্তচাপ বেশি হতে পারে। এ বিষয়কে হোয়াইট কোট হাইপারটেনশন বলে। এ কারণে কখনো ডাক্তারের সঙ্গে অ্যাপয়নমেন্ট থাকলে তাড়াহুড়া না করে কিছু সময় হাতে রেখে এবং ১০-১৫ মিনিট বিশ্রাম নিয়ে তারপর ডাক্তারের চেম্বারে ঢোকা উচিত।

* হোয়াইট কোট হাইপারটেনশন কী

যেহেতু ডাক্তাররা সাদা এপ্রোন বা কোট পরিধান করে তাই এ সমস্যাকে হোয়াইট কোট হাইপারটেনশন বলে। সাধারণত এ ক্ষেত্রে চিকিৎসকের চেম্বারে মাপা রক্তচাপ বাসায় বা অন্যত্র মাপা রক্তচাপের চেয়ে কমপক্ষে ৫-১০ মিমি পারদ বেশি হয়ে থাকে।

* কীভাবে নিশ্চিত হবেন

যদি বাসায় নিয়মিত রক্তচাপ মাপা যায় ও তা স্বাভাবিক থাকে কিন্তু ডাক্তারের চেম্বার বা ক্লিনিক বা হাসপাতালে রক্তচাপ মাপলে সিস্টোলিক রক্তচাপ কমপক্ষে ১০ মিমি পারদ বেশি হয় বা ডায়াস্টোলিক রক্তচাপ কমপক্ষে ০৫ মিমি পারদ বেশি হয় তবে তাকে হোয়াইট কোট হাইপারটেনশন বলে। এ ছাড়া এক বিশেষ ধরনের মেশিনে ২৪ ঘণ্টা ধরে রক্তচাপ মাপা যায় বা মনিটর করা যায়, তখন বাসায় বা অন্যত্র রক্তচাপ স্বাভাবিক থাকলে তা নিশ্চিত হওয়া যায়। এ ক্ষেত্রে মেশিন স্বয়ংক্রিয়ভাবে ২৪ ঘণ্টা ধরে দিনেরবেলা প্রতি ১৫-৩০ মিনিট পর পর এবং রাতে প্রতি ৩০-৬০ মিনিট পর পর রক্তচাপ মেপে তা মেশিনের মেমোরিতে সংরক্ষণ করে এবং ২৪ ঘণ্টা পর ওই মেশিন থেকে আমরা কম্পিউটারে রিপোর্ট পাই। সাধারণত দিনেরবেলায় গড় রক্তচাপ কেমন থাকে তা দেখে পরবর্তী চিকিৎসার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

* ভবিষ্যতে কী সমস্যা হয়

হোয়াইট কোট হাইপারটেনশন হলে ভবিষ্যতে উচ্চরক্তচাপ হতে পারে। তাই প্রতি ৬ মাস থেকে ১ বছর পর পর নিয়মিতভাবে কোনো মেডিকেল প্রোফেশনাল দিয়ে রক্তচাপ পরীক্ষা করা উচিত। তাছাড়া এ হোয়াইট কোট হাইপারটেনশন রোগীদের স্বাভাবিক মানুষের তুলনায় জটিলতা বেশি হয়।

লেখক: অধ্যাপক, মেডিসিন ও হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ, মেডিনোভা মেডিক্যাল সার্ভিসেস, মালিবাগ, ঢাকা।

জীবন নিয়ে উক্তি