সোশাল মিডিয়ার মাধ্যমে ভুয়া খবর, বিভ্রান্তি ছড়ানোর প্রবণতা। সাম্প্রতিক রিপোর্টই তার প্রমাণ। আর এমন আবহেই ফের কড়া পদক্ষেপ হোয়াটসঅ্যাপের। ইউজারদের সুরক্ষার কথা ভেবে চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে মার্চের মধ্যে ২ কোটিরও বেশি অ্যাকাউন্ট নিষিদ্ধ করল এই মেসেজিং অ্যাপ।

তথ্য বলছে, গত বছরের তুলনায় এবার প্রায় দ্বিগুণ অ্যাকাউন্টের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে হোয়াটসঅ্যাপ (WhatsApp)। তথ্য প্রযুক্তি আইন মেনে এই প্ল্যাটফর্মের কমিউনিটি স্ট্যান্ডার্ড এবং ইউজারদের সুরক্ষার কথা মাথায় রেখেই এই পদক্ষেপ। জানা গিয়েছে, গত পয়লা জানুয়ারি থেকে ৩১ জানুয়ারির মধ্যে ৬৭ লক্ষ ২৮ হাজার অ্যাকাউন্ট নিষিদ্ধ করা হয়েছে। ফেব্রুয়ারিতে সেই সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৭৬ লক্ষ ২৮ হাজারে। সবচেয়ে বেশি অ্যাকাউন্ট নিষিদ্ধ করা হয়েছে গত মার্চে। পয়লা থেকে ৩১ মার্চের মধ্যে ৭৯ লক্ষ ৫৪ হাজার অ্যাকাউন্টে উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। অর্থাৎ সব মিলিয়ে, ২০২৪ সালের শুধু প্রথম তিন মাসেই ২ কোটি ২৩ লক্ষ ১০ হাজার অ্যাকাউন্ট ব্যান করা হয়েছে।

গত বছরের রিপোর্টের সঙ্গে তুলনা করলেই স্পষ্ট হয়ে যাবে ছবিটা। ২০২৩ সালের জানুয়ারিতে ২৯ লক্ষ ১৮ হাজার, ফেব্রুয়ারিতে ৪৫ লক্ষ ৯৭ হাজার ৪০০টি অ্যাকাউন্টের উপর কোপ পড়ে। গত বছরের মার্চে সেই সংখ্যাটা ছিল ৪৭ লক্ষ ১৫ হাজার ৯০৬। তিন মাসে সব মিলিয়ে ১ কোটি ২২ লক্ষ ৩১ হাজার ৩০৬টি অ্যাকাউন্ট নিষিদ্ধ করা হয়।

অ্যাকাউন্ট নিষিদ্ধ করার অর্থ কী? যার অ্যাকাউন্ট ব্যান করা হয়েছে, সেই ইউজার ফলোয়িং মেসেজ দেখতে পাবে, কিন্তু হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করতে পারবে না। হোয়াটসঅ্যাপের নিয়ম লঙ্ঘন করা হলেই এই পদক্ষেপ করা হচ্ছে। তাই আপনিও সাবধান হোন। হোয়াটসঅ্যাপের নিয়ম ভাঙলেই হতে পারে শাস্তি!

জীবন নিয়ে উক্তি