দেশটির স্থানীয় সংবাদমাধ্যম এমভি প্লাসের খবরে এ তথ্য জানানো হয়েছে।স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ফাতিমাথ রিফাথ বলেন, মালদ্বীপের কিছু কোম্পানি জাল কাগজপত্র দাখিল করে শ্রমিক নিয়োগ করেছে। তাই এক মাস আগে বাংলাদেশ থেকে অদক্ষ শ্রমিক নিয়োগ বন্ধ করা হয়েছিল। বিষয়টি নিয়ে তদন্ত শুরু হয়েছে। 

দ্বীপ দেশটিতে অবৈধ অভিবাসী সমস্যা দীর্ঘ দিনের। সমস্যা সমাধান প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্প্রতি ‘কুরাঙ্গি’ নামে বিশেষ অভিযান শুরু করেছে। এ অভিযানে ৭০০ জনেরও বেশি অভিবাসীর বায়োমেট্রিক তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে।

 

গত ডিসেম্বরে এক সংবাদ সম্মেলনে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আলী ইহুসান বলেছিলেন, বাংলাদেশি শ্রমিকদের জন্য আগে থেকেই ১ লাখ ৩৯ হাজার ২২০টি ওয়ার্ক পারমিট রয়েছে। তাদের মধ্যে ওয়ার্ক পারমিট ফি নিয়মিতভাবে দিয়ে বৈধ আছে মাত্র ৩৯ হাজার ৪ জন।

গত ডিসেম্বর পর্যন্ত মালদ্বীপে ৯০ হাজার ৬৪২ জন বাংলাদেশি শ্রমিক ছিলেন। দেশটির কর্মসংস্থান আইন অনুযায়ী, একটি দেশ থেকে শ্রমিক নিয়োগের কোটা ১ লাখের কম।

জীবন নিয়ে উক্তি