বিয়েতে বরের বাহন হিসেবে ঘোড়া, হাতি, গরুর গাড়ি, পালকি- কত কিছুই না বেছে নেন অনেকে। এবার বরের গাড়ি হিসেবে ট্রেনকে বেছে নিতে দেখা গেছে মিজানুর রহমান মাছুমকে। মাছুম চাকরিও করেন বাংলাদেশ রেলওয়েতে। বৃহস্পতিবার রাজশাহী থেকে ছেড়ে আসা সিল্কসিটি এক্সপ্রেস ট্রেনে চড়ে পাবনা থেকে ঢাকায় বরযাত্রী হিসেবে যান মাছুম ও তার আত্মীয়স্বজন।

জানা গেছে, পাবনার ফরিদপুর উপজেলার রামনগর গ্রামের আনিসুর রহমান ও আয়েশা রহমান দম্পতির পঞ্চম সন্তান মিজানুর রহমান মাছুম। তিনি চাকরি করেন বাংলাদেশ রেলওয়েতে। পরিবারের পছন্দ মতো বিয়ে করছেন ঢাকার শনির আখড়ায়।

বর মিজানুর রহমান বলেন, আমরা সকাল নয়টায় পাবনা থেকে রওয়ানা করেছি। পূর্ব কোন পরিকল্পনা ছিল না যে ট্রেনে করে বিয়ে করতে যাব। আমার সঙ্গে আমার বড় ভাই, বন্ধু পরিবারের অন্যন্য সদস্যরা এসেছে। পরিবারের পছন্দে বিয়ে করছি, আমরা আবার কনেসহ সন্ধ্যে সাড়ে ৭টায় চিত্রা এক্সপ্রেস ট্রেনে করে পাবনার উদ্দেশে রওয়ানা করব।

বরের চাচা আব্দুর রব বলেন, বাস ও প্রাইভেটকারের চেয়ে ট্রেনের যাত্রা নিরাপদ হওয়ায় আমরা ট্রেন বেঁছে নিয়েছি। এতে আমরা যারা এসেছি সবাই খুব আরামে আসতে পেরেছি। কারো কোন অসুবিধা হয়নি, সবাই স্বস্তি নিয়ে এসেছে।

বরের বড় ভাই মনির হোসেন বলেন, আমরা পাবনার বুনাইনগর ফরিদপুর থেকে এসেছি। ট্রেন যাত্রা আমাদের ভালো লাগে, আমরা দুইটা কেবিন ও পাশে সিট নিয়ে এসেছি। আমার ছোট ভাই রেলওয়েতে চাকরি করে। আমরা আবার ছোট ভাইয়ের বউকে নিয়ে ট্রেনে ফিরে যাব পাবনায়।

বরের বন্ধু সাউথ আফ্রিকা প্রবাসী সাইফুল ইসলাম বলেন, আমি প্রবাসে থাকার কারণে বিভিন্ন বন্ধুর বিয়েতে অংশ নিতে পারিনি। এখন বন্ধু মাছুমের বিয়েতে অংশগ্রহণ করতে পেরে নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে করছি। এছাড়া বেশ কিছু বিয়েতে অংশ নিলেও ট্রেনে চড়ে বিয়ের বরযাত্রী হওয়ার অভিজ্ঞতা প্রথম। সবমিলিয়ে ভালো লাগছে আমি খুবই আনন্দিত।

মা নিয়ে উক্তি