বঙ্গোপসাগরে বিদ্যমান লঘুচাপ ও বৈরী আবহাওয়ার কারণে জেলেরা নদী বা সাগরে যেতে না পারায় চাঁদপুর মাছঘাটে তেমন ইলিশ আসছে না। তাই ইলিশের ভরা মৌসুমেও রুপালি ইলিশের শহর চাঁদপুর মাছঘাটে ইলিশের আমদানি কম। এতে বেড়ে গেছে চাহিদা ও দাম।

শনিবার (১৩ আগস্ট) সরেজমিনে চাঁদপুর মাছঘাটে দেখা যায়, সকালে ঘাটে ইলিশভর্তি ট্রলার আসতে দেখা গেছে। কিন্তু দুপুরের পর থেকে ইলিশের আমদানি না থাকায় ঘাট-সংশ্লিষ্টরা অনেকটা অবসর সময় কাটাচ্ছেন।

জুলাই, আগস্ট, সেপ্টেম্বর— এই তিন মাস ইলিশের ভরা মৌসুম। মৌসুম ঘিরে এ সময় শহরের প্রধান মৎস্যকেন্দ্র চাঁদপুর মাছ ঘাট থাকে সরগরম। তবে আগস্টের আগামী সপ্তাহে ইলিশের কিছুটা আমদানি বাড়বে বলে মনে করেন স্থানীয় মৎস্য ব্যবসায়ীরা।

দাম বিষয়ে জানা যায়, পাইকারি মূল্যে ১ কেজি ৪০০ গ্রামের ইলিশের দাম মণপ্রতি ৬৫ থেকে ৬৭ হাজার টাকা। ৮০০ থেকে ৯০০ গ্রামের ইলিশ মণপ্রতি ৪০ থেকে ৪৫ হাজার টাকা। ৫০০ থেকে ৬০০ গ্রামের ইলিশ আকারে একটু ছোট মণপ্রতি ২৮ থেকে ৩০ হাজার টাকায় বিক্রি হয় বলে ব্যবসায়ীরা জানান।

তবে সাগর উপকূলীয় এলাকা থেকে চাঁদপুরের পদ্মা-মেঘনার ইলিশের দাম কিছুটা বেশি বলে জানান আড়তদাররা।

ব্যবসায়ী মাসুদ রানা জানান, ১ কেজি ৫০০ গ্রামের ইলিশের দাম প্রতি কেজি ১ হাজার ৭০০ টাকা। ৮০০ থেকে ৯০০ গ্রামের ইলিশ প্রতি কেজি ১ হাজার ৪০০ টাকা। ৫০০ থেকে ৬০০ গ্রামের ইলিশ আকারে একটু ছোট প্রতি কেজি ৭০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

স্থানীয় এক ক্রেতা বলেন, আমি ঘাটে এসেছি ইলিশ নেওয়ার জন্য। কিন্তু এখানে এসে দেখি, ইলিশ কম থাকায় দাম অনেক বেশি।

সিলেট থেকে চাঁদপুর মাছ ঘাটে আসা ক্রেতা হাসান জানান, ইলিশের বাড়ি চাঁদপুরের পদ্মা-মেঘনার মাছ খুব সুস্বাদু। তাই আমরা চাঁদপুর মাছঘাটে এসেছি মাছ কিনতে। কিন্তু মাছের দাম বেশি থাকায় মাছ কিনতে পারলাম না।

মৎস্য ব্যবসায়ী আকাশ মোল্লা জানান, চাঁদপুরের লোকাল ইলিশ মাছ ও সাগরের মাছ কম আসায় মাছে দাম একটু বেশি।চাহিদা অনুযায়ী মাছ কম আসায় মাছের বেশি একটু বেশি যাচ্ছে।

চাঁদপুর মৎস্য বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক হাজী শবেবরাত সরকার বলেন, এক সপ্তাহ ধরে সাগরে মোহনায় বাতাস, বৈরী আবহাওয়া কারণে জেলেরা মাছ ধরতে পারেনি। এখন আবহাওয়ার আগের তুলনায় অনেক ভালো। আশা করি জেলেরা মাছ ধরতে পারবে। তাই আগামী দুই-তিন দিনের মধ্যে ইলিশের আমদানি বাড়বে। চাঁদপুর মাছঘাটে এখন পর্যন্ত ৫০০ থেকে ৬০০ মণ ইলিশ আমদানি হয়েছে।

জেলা মৎস্যজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক তসলিম বেপারী পদ্মা-মেঘনা নদীতে ইলিশ ধরা পড়ছে না দাবি করে বলেন, চাঁদপুরে ষাটনল থেকে চরভৈরবী ৭০ কিলোমিটার পর্যন্ত পদ্মা-মেঘনা নদীতে ইলিশ মাছ নেই। জেলেরা আশা নিয়ে নদীতে মাছ ধরতে যান। কিন্তু কাঙ্ক্ষিত ইলিশ না পাওয়ায় তারা হতাশায় ধুঁকছেন।

তিনি আরও বলেন, হাতিয়া, নোয়াখালী সাগরের উপকূলীয় এলাকা থেকে কিছু মাছ চাঁদপুর মাছঘাটে আসে। সেই মাছ চাঁদপুরের ব্যবসায়ীরা বিক্রি করেন।