উপসাগরীয় দেশ কুয়েতে মহামান্য আমীরের বিশেষ ক্ষমা ঘোষণার মধ্য দিয়ে নতুন ইতিহাস রচনা হতে চলেছে। মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) বিকেল থেকে আমিরের বিশেষ ক্ষমার ঘো্মার”র সংবাদ প্রচারের পর স্বস্থি দেখা দিয়েছে দেশটির রাজনৈতিক অঙ্গনে।

জানা যায়, মহামান্য আমীর বিশেষ ক্ষমার বিষয়ে ঠিক করতে একটি কমিটি গঠন করেছে, এবং খুন শীঘ্রই বিস্তারিত জানানো হবে।

এর আগে ৩৮ জন সাংসদ একটি যৌথ বিবৃতিতে মহামান্য আমীরকে অনুরোধ করেছেন যে, কুয়েতের জনগণের জন্য সাধারণ ক্ষমা অনুমোদনের মাধ্যমে ব্যাপক জাতীয় পুনর্মিলনের প্রথম ধাপগুলি শুরু করতে , যারা রাজনৈতিক মতামত বা অবস্থার জন্য দোষী সাব্যস্ত হয়।

জাতীয় পরিষদে ওবায়েদ আল ওয়াসমি, জাতির নামে এবং জাতীয় পরিষদের স্পিকারের অনুমোদনের সাথে এবং আমাদের বৈধ, জাতীয়, আইনগত এবং নৈতিক দায়িত্বের বিবেচনার ভিত্তিতে এবং একটি উচ্চ আকাঙ্ক্ষার জবাবে মহামান্য আমিরের নির্দেশনায় সমস্ত সমস্যা সমাধান সম্ভব, যার সুফল পাবে জনগণ।

তবে পুরো কুয়েত জুড়ে আনন্দ প্রকাশ করে আমীরের উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছে, এটিকে ঐতিহাসিক ঘোষণা বলে অবিহিত করেছে রাজনৈতিক দলগুলি ।

প্রসঙ্গত, রাজনৈতিক বিরোধে সাবেক বিরোধীদলের নেতা মোসাল্লেম বারেক, মোবারক দোলিয়াসহ অনেক সাবেক এমপি কুয়েতের বাইরে অবস্থান করছে, ক্ষমা ঘোষনার এদের সকলে দেশে ফেরত আসিতে পারিবে।