আলোচিত চিত্রনায়িকা পরীমনি তার দুইটি গাড়ি, ল্যাপটপ ও মোবাইল ফেরত চেয়ে আদালতে আবেদন করেছেন। মা;দ;কদ্র;ব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের ;মাম;লায় গ্রে;ফ;তার হওয়ার পর আ;লামত হিসেবে এগুলো জব্দ করা হয়েছিল।

বুধবার (১৫ সেপ্টেম্বর) আদালতে এই মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য দিন ধার্য রয়েছে। পরীমনি হাজিরা দিতে বেলা পৌনে ১১টার দিকে আদালতে উপস্থিত হন।

ঢাকা মহানগর হাকিম সত্যব্রত শিকদারের আদালতে দুপুর ১২টার দিকে পরীমনির জব্দ করা গাড়ি, ল্যাপটপ ও মোবাইল ফেরত চেয়ে আবেদন করেন তার আইনজীবী মো. মজিবুর রহমান। এই আইনজীবী নিজেই বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে ৩১ আগস্ট ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশ শুনানি শেষে পরীমনির জামিন মঞ্জুর করেন। পরদিন গাজীপুরের কাশিমপুর কেন্দ্রীয় মহিলা কারাগার থেকে মুক্ত হন তিনি।

গত ৪ আগস্ট সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে পরীমনিকে তার বনানীর বাসা থেকে আটক করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)।

সেদিন রাত ৮টা ১০ মিনিটে পরীমনিকে একটি সাদা মাইক্রোবাসে র‌্যাব সদর দপ্তরে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে রাত ১২টা পর্যন্ত তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে র‌্যাব। পরদিন ৫ আগস্ট বিকেল ৫টা ১২ মিনিটে পরীমনি, চলচ্চিত্র প্রযোজক রাজ ও তাদের দুই সহযোগীকে কালো একটি মাইক্রোবাসে বনানী থানার উদ্দেশে নিয়ে যাওয়া হয়।

এরপর র‌্যাব বাদী হয়ে রাজধানীর বনানী থানায় পরীমনি ও তার সহযোগী দীপুর বি;রুদ্ধে মাদ;কদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মাম;লা করে। এরপর তাকে আদালতে হাজির করলে প্রথমে চার দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন বিচারক। পরে আরও দুই দফায় তাকে রিমান্ডে নেওয়া হয়।

২০১৪ সালে সিনেমায় ক্যারিয়ার শুরু করা পরীমনি এ পর্যন্ত ৩০টি সিনেমা ও বেশ কয়েকটি টিভিসিতে অভিনয় করেছেন। পিরোজপুরের মেয়ে পরীমনিকে চলচ্চিত্র জগতে নিয়ে আসেন প্রযোজক রাজ।