পবিত্র হজের প্রাথমিক প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। প্রতি বছরের মতো এ বারও কাবা ঘরের কালো গিলাফ নিচ থেকে তিন মিটার ওপরে উঠিয়ে অতিরিক্ত সাদা কাপড় দিয়ে আবৃত করা হয়েছে।

গতকাল বুধবার (৩০ জুন) রাতে মসজিদে হারাম ও মসজিদে নববির জেনারেল প্রেসিডেন্সির তত্ত্বাবধানে ৩৭ জন কর্মকর্তা তা সম্পন্ন করেন।

এদিকে মসজিদুল হারাম ও মসজিদে নববির পরিচালনা পরিষদের প্রধান শায়খ ড. আবদুর রহমান আল সুদাইস কাবার কালো গিলাফ ওপরে তোলার কাজে অংশগ্রহণ করেন। শায়খ আল সুদাইস জানান, ‘কিং আবদুল আজিজ

কমপ্লেক্স ফর দ্য কভারিং কাবা-এর বিশেষজ্ঞ দল পবিত্র কাবার গিলাফ ওপরে তোলার কাজ সুন্দরভাবে সম্পন্ন করেছেন।’

পবিত্র কোরআনের আয়াতের কারুকার্য খচিত কাবার গিলাফটি রেশমের কাপড়ের টুকরোতে ভাজ করা থাকে। প্রতি বছরের মতো এবারও গিলাফের সুরক্ষার জন্য তা ওপরে তোলা হয়। তাওয়াফের সময় সবাই ওপরে তোলা কাবার গিলাফ দেখার সুযোগ পাবে।

এদিকে কাবার গিলাফ উপরে উঠিয়ে রাখার কারণ: প্রতি বছর হজে অসংখ্য মানুষের আগমন হয়। ইসলামের সূচনাকাল থেকে হজের সময় কাবার গিলাফ সুরক্ষার জন্য উপর দিকে তিন মিটার তোলার রীতি চলে আসছে।

হজের প্রচণ্ড ভিড়ের মধ্যেও যেন কেউ গিলাফের কোনো অংশ স্পর্শ করে নষ্ট না করে মূলত এই উদ্দেশ্যেই গিলাফের কাপড় তোলা হয়।

তাছাড়া গিলাফ নিচ পর্যন্ত দেখতে পেয়ে হাজিদের অনেকে কাঁচি নিয়ে গিলাফের কিছু অংশ কেটে নেন। তাঁরা গিলাফকে নিজেদের নানা ধরনের উদ্দেশ্য পূরণের মাধ্যম হিসেবে মনে করেন। আবার অনেকে কাবার গিলাফে নিজেদের নাম লেখা শুরু করেন। অথচ তাদের এই ধরনের বিশ্বাসের সঙ্গে বাস্তবতার কোনো মিল নেই।

গিলাফে সাদা কাপড়ের রহস্য: কালো গিলাফ উপর দিকে তুলে সেই স্থানে সাদা কাপড় দেওয়া হয়। মূলত এর

মাধ্যমে হজের অনানুষ্ঠানিক ঘোষণা দেওয়া হয়। হজের সময় কাবার দেয়ালে সাদা কাপড় হজের পূর্বপ্রস্তুতির জানান দেয়। হজের শেষ সময় পর্যন্ত সাদা কাপড় থাকে। এরপর আগের মতো পুনরায় কালো গিলাফ নামিয়ে দেওয়া হয়।