কুয়েতে প্রবাসীদের বে’র করে দেওয়া নিয়ে আলোচনা শুরু

কুয়েত একটি ছোট তেল সমৃদ্ধ দেশ যার দক্ষিণে সৌদি আরব ও উত্তরে ইরাক বে’ষ্টিত। কুয়েতের আয়তন ১৭,৮১৮ বর্গকিলোমিটার ও জনসংখ্যা প্রায় ৪৫ লক্ষ। যার দুই তৃতীয়াংশ প্রবাসী। তাই এই প্রবাসীদের সংখ্যা ক’মিয়ে আনা নিয়ে কুয়েতে চলছে নতুন আলোচনা।

কুয়েত সরকার কয়েক লাখ প্রবাসী কর্মীকে সেদেশ থেকে বে’র করে দিতে চায় । এ জন্য কুয়েতের সরকার ও ন্যাশনাল এ’সেম্বলির মানবসম্পদ বিষয়ক ক’মিটির মধ্যে আলোচনা শুরু হয়েছে। এই ক’মিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে পারে সরকার।

কুয়েতের জনপ্রিয় পত্রিকা কুয়েত টাইমস এর একটি প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, বিদেশি কর্মীর সংখ্যা ক’মিয়ে আনার জন্য সরকার ও সংসদ থেকে যে প্রস্তাবনা এসেছে তা পর্যালোচনা করছে এই ক’মিটি। এ বিষয়ে সংসদ সদস্যরা সাত দ’ফা পরিকল্পনা জমা দিয়েছেন। এতে প্রতিটি অভিবাসী সম্প্রদায়ের জন্য একটি সুনির্দিষ্ট শতকরা হার নির্ধারণের কথা বলা হয়েছে।

কুয়েতের সরকারি সেবাখাতে কর্মরত আছেন এমন এক লাখ ৬০ হাজার বিদেশির স্থানে স্থানীয়দের নিয়োগ দেয়ার পরিকল্পনার কথা বলেছে কুয়েত সরকার। তবে কবে নাগাদ এ কর্মসূচি শুরু হবে তার সুনির্দিষ্ট কোনো সময়সীমা উল্লেখ করা হয় নি।

ঐ প্রস্তাবনায় আরো বলা হয়েছে, প্রায় ৩ লাখ ৭০ হাজার বিদেশি কুয়েতের ওপর নে’তিবাচক প্র’ভাব ফেলছেন। এসব অভিবাসী বা অ’বৈ’ধভাবে বসবাসকারীদের অল্প সময়ের কর্মসূচির অধীনে ‘ডি’সমিস’ করে দেয়া যেতে পারে। সরকার তার পরিকল্পনায় আরো বলেছে, ‘মার্জিনাল’ বা প্রান্তিক পর্যায়ের শ্রমিক ক’মিয়ে আনতে হবে শতকরা ২৫ ভাগ। সরকারি কর্মক্ষেত্রে বিদেশি কমিয়ে আনার কথা বলা হয়েছে।

উপসাগরীয় এই দেশটিতে ২০০৫ সাল থেকে ২০১৯ সালের মধ্যে বিদেশি অভিবাসীর সংখ্যা বিপুল পরিমাণে বৃদ্ধি পেয়েছে বলে আলোচনায় উ’ত্থাপন করেছে সরকার। এতে বলা হয়েছে এ সময়ে কুয়েতে গিয়েছেন ৪৪ লাখ ২০ হাজার বিদেশি।

এ সময়ে নাগরিকের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে ৮ লাখ ৬০ হাজার থেকে ১৩ লাখ ৩৫ হাজারে। এ সময়ে বিদেশিদের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে শতকরা ১৩০ ভাগেরও বেশি। ১৩ লাখ ৩০ হাজার বিদেশির সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়ে দাঁড়িয়েছে ৩০ লাখ ৮০ হাজার।

কুয়েত সরকার বলছে, জনসংখ্যায় এক ভা’রসাম্যহীনতা সৃষ্টি হয়েছে। এতে নি’রাপত্তা, সামাজিক, অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রে এক নে’তিবাচক প্র’ভাব পড়েছে।