থানার ভেতরে লাগানো গাছের চারা খেয়ে ফেলায় ছাগল আটক করেছে পুলিশ। পরে ছাগল মালিক অনেক চেষ্টা করে ছাগল ছাড়াতে না পেরে স্থানীয় সংসদ সদস্যের শরণাপন্ন হন। সংসদ সদস্য থানায় ফোন দেয়ার পরও ছাগলটি ছাড়েনি পুলিশ।

সিলেটের হবিগঞ্জের বাহুবলে ঘটেছে ঘটনাটি। এ ঘটনা নিয়ে নানা রকমের মত প্রকাশ করতে শুরু করেছেন এলাকাবাসী।

জানা গেছে, বাহুবল সদর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সাত নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মো. ফারুক আহমেদের একটি রাম ছাগল মঙ্গলবার (২ আগস্ট) বাহুবল মডেল থানায় লাগানো কয়েকটি গাছের চারা খেয়ে ফেলে। তখনই পুলিশ ছাগলটি আটক করে। বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত ছাগলটি থানায় আটক ছিল।

ইউপি সদস্য ফারুক মিয়া বলেন, মঙ্গলবার আমার ছাগলটিকে থানায় আটক করা হয়। উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সোহেল আহমেদ কুটির মাধ্যমে যোগাযোগ করা হলেও ছাগলটি ছাড়া হয়নি।

বৃহস্পতিবার হবিগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য গাজী মোহাম্মদ শাহনওয়াজ মিলাদের শরণাপন্ন হয়েছিলাম। তিনি ওসিকে মোবাইলফোনে কল দেওয়ার পরও থানা থেকে আমার ছাগল ছাড়া হয়নি।

বাহুবল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রকিবুল ইসলাম খান বলেন, ইউপি সদস্যের ছাগলটি থানার ভেতরের বনায়ন বিনষ্ট করায় এটিকে

আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় সংসদ সদস্য আমাকে কল দিয়েছিলেন। তিনি যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বলেছেন। এ বিষয়ে কথা বলতে এমপি গাজী মোহাম্মদ শাহনওয়াজ মিলাদের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে তাকে ফোনে পাওয়া যায়নি।