সম্প্রতি বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সদস্যদের কার্ড বিতরণ করা হয়েছে। সেখানে নিপুণ আক্তার সাধারণ সম্পাদক হিসেবে স্বাক্ষর করেছেন। পরিচয়পত্রও বিতরণ করতে দেখা গেছে তাকে।

চলতি বছরের ২৮ জানুয়ারি শিল্পী সমিতির ২০২২-২৪ মেয়াদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। পরদিন প্রাথমিক ফলাফলে জায়েদ খানকে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে জয়ী ঘোষণা করা হয়।

পরে নির্বাচনী আপিল বোর্ডের কাছে এ নিয়ে লিখিত অভিযোগ করেন নিপুণ। এরপর থেকে সাধারণ সম্পাদক পদটি নিয়ে জটিলতা শুরু হয়। মামলা হাইকোর্ট পর্যন্ত গড়ায়। পদটি নিয়ে আদালত এখনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত দেননি।

তাহলে কোন নিয়ম মেনে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নিপুণের নাম রয়েছে? এ বিষয়ে সভাপতি ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, ‘হ্যাঁ, নিপুণ স্বাক্ষর করেছে। সে তো সকল অনুষ্ঠানেও অংশ নিচ্ছে। আর আদালত থেকে তো তাকে নিষেধও করেনি। আমি তো আইন নিয়ে পড়াশোনা করিনি, এটা আপনারা আদালতের কাছে জানতে চান। ’

সাধারণ সম্পাদক পদের জায়গায় চিত্রনায়ক নিপুণ আক্তারের স্বাক্ষর দেখে হতাশ জায়েদ খান। তিনি বলেন, ‘এটি অন্যায়। নিপুণ অবৈধভাবে স্বাক্ষর করে পরিচয়পত্র দিচ্ছেন। সে আদালত অবমাননা করেছে। নিপুণ আইনের তোয়াক্কা না করে সমিতির সব ধরনের কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছেন। আমি আইনজীবীদের সঙ্গে কথা বলে দ্রুতই পদক্ষেপ নেব।