এক সময়ের শীর্ষ চ’রমপ’ন্থি ছিলেন হজে গিয়ে সৌদি আরবের পবিত্র মদিনায় পুলিশের হাতে আটক মতিয়ার রহমান। মতিয়ার রহমান মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার সিন্দুরকৌটা গ্রামের ঘাটপাড়া এলাকার হারুন অর রশিদের ছোট ছেলে।

মতিয়ার রহমানের স্ত্রী মমতাজ খাতুন বলেন, আমার স্বামী হজে যান। হজ করে ফেরার সময় প্রতি বারই মোটা অংকের টাকা নিয়ে আসেন। আমি তো তাকে জিজ্ঞেস করেছি। কিন্তু তেমন কোনো উত্তর দেননি কখনো। এখন শুনছি সেখানে গিয়ে ভিক্ষাবৃত্তি করে। সবাই বলছে এটা তো আমার পরিবারের ও ছেলে মেয়েদের কাছে লজ্জার বিষয়।

মতিয়ার রহমানের ছেলে হুসাইন নবম শ্রেণির ছাত্র, বড় মেয়ে তামান্না অষ্টম শ্রেণি, মেঝ মেয়ে রাবিয়া খাতুন ৪র্থ শ্রেণি ও ছোট মেয়ে লামিয়া শিশু শ্রেণির ছাত্রী।

জানা গেছে, প্রায় ২০ বছর আগে গাংনী উপজেলার জোড়পুকুরিয়া-চেংগাড়ার মাঝে চোখতোলা নামক মাঠের মধ্যে বোমা বানাতে গিয়ে দুটি হাতের কবজি উড়ে যায় তার।

পরে চিকিৎসা নিতে গেলে পুলিশের সহযোগীতায় ডাক্তার দুটি হাত কেটে ফেলে দেন। বিভিন্ন মামলায় তিনি বেশ কিছুদিন জেল হাজত খেটেছেন। দীর্ঘদিন মামলা চলার পর মা;ম;লা থেকে রেহায় পান তিনি। তারপর থেকেই এই শীর্ষ স;ন্ত্রাসী মতিয়ার রহমান পথে পথে ঘুরে বেড়িয়েছেন দীর্ঘদিন।

দুবেলা খাবার জোটাতে পারেননি কখনো। তারপর শুরু হয় মতিয়ারের হজ ব্যবসা। প্রতি বারই হজের সময় হজের নামে সৌদি আরবে যান তিনি।সেখানে গিয়ে সৌদির পথে পথে ভিক্ষাবৃত্তি করে মোটা অংকের টাকা নিয়ে বাড়ি ফেরেন।

সৌদী আরবের মদিনায় পুলিশের হাতে গ্রে;ফতার হওয়ার পর খবরটি এলাকায় পৌছালে মানুষের মধ্যে চলছে তীব্র সমালো;চনা। তাকে নিয়ে গ্রামের স্থানীয় চায়ের দোকান ও এলাকায় শুরু হয়েছে নানা গল্প।

গত ২২ জুন সৌদি আরবের মদিনা শহরে ভিক্ষাবৃত্তি করার সময় পুলিশের হাতে আটক হন মতিয়ার রহমান।

গাংনী থানার ওসি আব্দুর রাজ্জাক জানান, মতিয়ার রহমানের বিরু;দ্ধে বিশেষ ক্ষমতা আইনে, মারামরি ও হাঙ্গামার অভিযোগে থানায় দুটি মামলা রয়েছে। সাম্প্রতিক সময়ে গ্রেফতার হয়েছিলেন এই মতিয়ার।

প্রতি বছরই মতিয়ার রহমান হজে যান। তার হজে যাওয়া নিয়ে গ্রামের মানুষের মাঝে চলে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। এলাকার মাত্র দু একজন হজে গেলেও মতিয়ার রহমান যান প্রতিবারই।

কিন্তু কেউ জানতো না সে হজের নামে ভিক্ষা বৃত্তি করেন। তার গ্রেফতার হওয়ার পর খবর ছড়িয়ে পড়ে গ্রামে। এখন চায়ের দোকান থেকে শুরু করে সবখানেই চলছে মতিয়ার সমাচার, জানালেন স্থানীয় মটমুড়া ইউপির সিন্দুর কৌটা গ্রামের ইউপি সদস্য ফারুক হোসেন।

মতিয়ার রহমান বড় ভাই আতিয়ার রহমান বলেন, ‘মতিয়ার আমার ছোট ভাই। সে এবারসহ ৪ বার হজে গেছেন। ওখানে গিয়ে সে কি করে এটা আমরা পরিবারের লোক কিভাবে বলবো। সে আটক হওয়ার পর খবর পেয়েছি আমরা। সবাই এখন সমালোচনা করছে এটা তো আমাদের খারাপ লাগবেই। তবে, যেহেতু সেখান থেকে ছাড়া পেয়েছে নিশ্চয় বাড়ি ফিরে আসবে। তখন বলা যাবে।’

ভিক্ষাবৃত্তি করার সময় গত ২২ জুন মদিনা পুলিশ তাকে আট;ক করেন। সে সময় মতিয়ার পুলিশকে মিথ্যা বলেছিলেন। তিনি সবাইকে বলছিলেন, তার মানিব্যাগটি ছিনতাই হয়ে গেছে। যে কারণে এই কাজ করছেন। পুলিশের সন্দেহ হলে তাকে আটক করে স্থানীয় থানায় নেন। পরে বিষয়টি জানাজানি হলে বাংলাদেশ হজ মিশনের হস্তক্ষেপে মুচলেকা নিয়ে ওই ব্যক্তিকে ছাড়িয়ে নেন।

কাউন্সিলর (হজ) জহরুল ইসলাম বিভিন্ন গণমাধ্যমকে জানান, মতিয়ার ধানসিঁড়ি ট্র্যাভেল এয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে হজ করতে সৌদি গিয়েছিলেন তিনি।

তবে বিভিন্ন পত্রিকার বরাতে জানা গেছে, মতিয়ার সৌদিতে কোনো হোটেল বুক করেননি। তাকে গাইড করার মতো কোনো মোয়াজ্জেমও ছিল না।

এ ঘটনার পর ধর্মবিষয়ক মন্ত্রাণলয় উপসচিব আবুল কাশেম মুহাম্মদ শাহীন ওই হজ এজেন্সিকে কারণ দর্শানোর নোটিশ পাঠিয়েছেন। নোটিশে জানতে চাওয়া হয়েছে, কেন তাদের বিরুদ্ধে হজ ও ওমরাহ আইন, ২০২১-এর ১৩ ধারার অধীনে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে না। ধর্মবিষয়ক মন্ত্রাণলয়ের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, এ ঘটনায় মধ্যপ্রাচ্যের দেশটিতে বাংলাদেশিদের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়েছে। তিন দিনের মধ্যে তাদের নোটিশের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

তবে, ‘বিষয়টি তদন্ত করে এজেন্সির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন হজ অ্যাসোসিয়েশন অফ বাংলাদেশের সভাপতি শাহাদাত হোসেন তাসলিম ।

এর আগে জননিরাপত্তার অধীনে এক সৌদি নাগরিকসহ ২৭ জনকে গ্রেফতার করে সৌদি পুলিশ। মিশরীয়, সিরিয়ান, পাকিস্তানী, সুদানী, ইয়েমেনিসহ বাংলাদেশর একমাত্র আটক মতিয়ার রহমান।

তবে, অভিযুক্ত ব্যক্তি ইচ্ছাকৃতভাবে ভিক্ষা করছিলেন, নাকি হজ এজেন্সির অবহেলার কারণে ভিক্ষা করতে বাধ্য হয়েছিলেন সেটা নিশ্চিত জানা যায়নি বলে জানিয়েছেন ধর্ম মন্ত্রণালয় সূত্র ।

ধানসিঁড়ি ট্রাভেল এয়ার সার্ভিসের কর্ণধার আল মামুনকে নোটিশ দিয়েছে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়। কেন তার এজেন্সির বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে না তার জবাব তিন দিনের মধ্যে মন্ত্রণালয়ে জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।