বাংলা সিনেমার জনপ্রিয় নায়িকা মৌসুমীকে নিয়ে আলোচনার শেষ নেই। তাকে কেন্দ্র করে ওমর সানী-জায়েদের মধ্যে দ;ণ্ড, এর পর পাল্টাপাল্টি বক্তব্য, সংসার ভাঙনের গুঞ্জনসহ নানা বিষয়ে সোশ্যাল মিডিয়া উত্তাল।

শেষ পর্যন্ত দূরত্ব মিটিয়ে আবার এক হয়ে গেছেন সানী-মৌসুমী। তবে এখনো যেন অভিনেত্রীর মনে কিছু অভিমান, কিছু ব্যথা রয়ে গেছে। বুধবার (২৩ জুন) ইনস্টাগ্রামে করা তার পোস্টে এমনই ইঙ্গিত পাওয়া গেলো।

এদিন ইনস্টাগ্রাম হ্যান্ডেলে মৌসুমী লিখেছেন, লুকিয়ে থাকতে চাইলেই লুকিয়ে থাকা যায়। সামনে যেটা থাকে সেটা শরীর। আমি এখন শামুকের মতো হয়ে গেছি। আড়াল করে নিজেকে নিয়ে আছি, এটাই স্বস্তি।

তিনি আরও লিখেছেন, যখন দিনের আলো দেখার সুযোগ হয়, নিজেকে বেমানান লাগে। তবে পুরো কথা যেন বলতে গিয়েও বললেন না! সিলেটের বন্যাদুর্গত মানুষের কথাও স্মরণ করেছেন তিনি, সিলেটবাসীর কাছে ছুটে যেতে ইচ্ছে করে। হয়তো সুযোগ হলে যাবো, আপনারা সবাই তাদের জন্য দোয়া করবেন।

উল্লেখ্য, গত কয়েক দিন ধরেই গুঞ্জন চলেছে ওমর সানী-মৌসুমীর সংসার ভাঙনের। তা আরও জোরদার হয় বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতিতে সানীর দেওয়া অভিযোগপত্রে।

তিনি জানান, চিত্রনায়ক জায়েদ খান তাদের ২৭ বছরের সুখের সংসার ধ্বংস করে দিচ্ছেন। এই কারণেই এর আগে অভিনেতা-প্রযোজক ডিপজলের ছেলের বিয়েতে বাধে সংঘর্ষ। সানী সপাটে চ;ড় মারেন জায়েদ খানকে। অভিযোগ আছে, জায়েদ খানও পি;স্তল দিয়ে গু;লি করার হুম;কি দিয়েছেন। চড় মারা;র কারণ হিসেবে সানী দাবি করেন, গত চার মাস ধরে জায়েদ মৌসুমীকে ডিস্টার্ব ও অসম্মান করছে।

তবে মৌসুমীই উল্টো জানিয়ে দেন, জায়েদ খান ভালো ছেলে। এটা সানী ও তার দাম্পত্য জীবনের ভুল বোঝাবুঝি। এরপর থেকেই সানীর দিকে আঙুল তুলেছেন অনেকে। তবে ১৬ জুন মধ্যরাতে সানী একটি ছবি প্রকাশ করেন। যেখানে দেখা যায়, খাবার টেবিলে মুখোমুখি বসে আছেন মৌসুম ও তিনি। এরপরই সানী জানিয়েছিলেন তারা ভালো আছেন!