হজরত শাহজালাল বিমানবন্দরে মাস্ক চু’রিঃ ব’হিষ্কার ২ কর্মকর্তা

ঢাকার হযরত শাহজালাল ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্টের কার্গো গোডাউন থেকে তমা কনস্ট্রাকশনের আমদানি করা মাস্ক চু’রির ঘট’নায় বাংলাদেশ বিমানের ২ কর্মকর্তাকে চাকরি থেকে ব’হিষ্কার করা হয়েছে। বাংলাদেশের বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বিমানবন্দরের গ্রাউন্ড হ্যান্ডেলিংয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান। ফলে সেখানে কোনো চু’রির ঘ’টনা ঘ’টলে তার দা’য় নিতে হয় বিমানকে। তবে এ ঘটনায় জ’ড়িত থাকার অ’ভিযোগে বিমানের দু’জনকে চা’করিচ্যুত করা হলেও তাদের নাম-পরিচয় জানা যায়নি। গত এপ্রিল ও মে মাসে এই চু’রির ঘ’টনা ঘটেছিল।

এর আগে গত ২ মে তমা কনস্ট্রাকশনকে তিন লাখ পিস এন-৯৫ মাস্ক সরবরাহের কার্যাদেশ দেয় কেন্দ্রীয় ঔষধাগার (সিএমএসডি)। তবে সংখ্যায় কম হওয়ায় কেন্দ্রীয় ঔ’ষধাগার থেকে চিঠি দিয়ে এর ব্যাখ্যা চাওয়া হয়।

কেন্দ্রীয় ঔষধাগারের এক চিঠিতে বলা হয়, তমা কনস্ট্রাকশনের এক লাখ ৮০০ পিসের একটি চালান সিএমএসডিতে গ্রহণ করার সময় দৈ’বচয়নের ভিত্তিতে প’র্যবেক্ষণের সময় প্রথম ২০টি কার্টনের মধ্যে ৫-৬টি কার্টনে ১-২টি বক্স ক’ম পাওয়া যায়। এভাবে কার্টনে বক্স না থাকলে আনুপাতিক হারে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক মাস্ক ক’ম পাওয়া যাবে, যা অ’নভিপ্রেত ও চু’ক্তিশর্ত ল’ঙ্ঘন।

তমা কনস্ট্রাকশন এ বিষয়ে নিজস্ব ত’দন্তে বিমানবন্দরের কার্গো গোডাউন থেকে মাস্ক চু’রির বিষয়টি নি’শ্চিত হয়।

চু’রির ঘট’নাটির সঠিক তদন্তের জন্য বাংলাদেশের বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ এর চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মা’র্শাল মফিদুর রহমানকে একটি চিঠি দেয় তমা কনস্ট্রাকশন। বেবিচক চেয়ারম্যান এ বিষয়ে একটি উচ্চ ক্ষ’মতাসম্পন্ন ত’দন্ত ক’মিটি গঠন করেন। সপ্তাহব্যাপী ত’দন্ত শেষে কর্তৃপক্ষের কাছে প্র’তিবেদন দাখিল করে কমিটি। প্র’তিবেদনে উঠে আসে এয়ারপোর্টে অ’ভ্যন্তরের চু’রির সঙ্গে জ’ড়িতদের নামের তালিকা।

বাংলাদেশের বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ এর চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মা’র্শাল মফিদুর রহমান এ ব্যাপারে বলেছিলেন, ‘সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে এই ঘ’টনার ত’দন্ত করানো হয়েছিল। ভিডিও ফুটেজে পুরো চু’রির ঘটনাটি দেখা গেছে এবং জ’ড়িতদের চি’হ্নিত করা হয়েছে। প্রতিবেদনটি সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়ে তাদের বি’রুদ্ধে কী কী ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে, সে বিষয়ে আমাকে অবগত করতে বলা হয়েছে।’