রাশিয়ার ফ্ল্যাগশিপ উরাল ক্রুড তেলের রেকর্ড পরিমাণ প্রায় ৬ কোটি ২০ লাখ ব্যারেল নিয়ে সমুদ্রে ভাসছে বেশ কিছু জাহাজ। অ্যানার্জি অ্যানালিটিক্স ফার্ম ভোরটেক্সা এ তথ্য দিয়েছে। ক্রেতার অভাবে রেকর্ড পরিমাণ তেল নিয়ে জাহাজগুলো গন্তব্যহীন হয়ে পড়েছে। খবর- রয়টার্স।

রাশিয়া ইউক্রেনে হামলা শুরুর পর যুক্তরাষ্ট্র রাশিয়ার ওপর নানাভাবে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। এর অংশ হিসেবে রুশ ক্রুড তেল আমদানিও নিষিদ্ধ করে দেশটি। রুশ তেলের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের চিন্তা আছে ইউরোপীয় কমিশনেরও।

ভোরটেক্সা বলছে, সমুদ্রে বর্তমানে যে পরিমাণ উরাল ক্রুড অয়েল ভাসছে, তা যুদ্ধের আগের অবস্থার গড় পরিমাণের চেয়ে তিনগুণ বেশি। মে মাসে এ পর্যন্ত হিসাবে দেখা যাচ্ছে, সমুদ্রপথে রাশিয়ার দৈনিক তেল রপ্তানি কমে দাঁড়িয়েছে ৬৭ লাখ ব্যারেল।

ফেব্রুয়ারিতে যেখানে দিনে ৭৯ লাখ ব্যারেল তেল রপ্তানি হতো। এ খাতের একজন বিশেষজ্ঞ বলছেন, যে সংখ্যা দেখা যাচ্ছে তাতে এটা স্পষ্ট যে রাশিয়ার রপ্তানি এখনও শক্ত অবস্থানে আছে। সমুদ্রে রাশিয়ার তেলের পরিমাণ বাড়তেই আছে।

তিনি বলেন, অবশ্য বর্তমানে যে পরিমাণ উরাল কার্গো সমুদ্রে রয়েছে এর ১৫ শতাংশের কোনো গন্তব্য নেই; এটা রেকর্ড পরিমাণ। এরমধ্যে কিছু হয়তো আছে যেগুলোর ক্রেতার নাম প্রকাশ করা হচ্ছে না, আর বাকিগুলো অবিক্রীত অবস্থায় রয়েছে। যুদ্ধ শুরুর পর রাশিয়ার ক্রুড তেলের ব্যারেলের বেশিরভাগের গন্তব্য হয়েছে এশিয়া, মূলত চীন ও ভারতে। ইউরোপেও গেছে প্রচুর তেল।