বর্তমানে বাংলাদেশের একজন তুমুল সমালোচিত ব্যক্তি হলেন হিরো আলম। বগুড়ার আর দশটা সাধারণ ডিশ ব্যবসায়ীর মতোই ছিল তার জীবন। কিন্তু ব্যবসার খাতিরে নিজেই যখন বিভিন্ন ভিডিওতে মডেল হতে শুরু করলেন তখন থেকেই ভাগ্যটা তার বদলে যেতে লাগলো।

পাঁচ শতাধিক ভিডিওতে মডেল হওয়া যুবক আশরাফুল আলম এখন ভাইরাল হিরো আলম।তিনি এখন সিনেমারও নায়ক। যখন যা করেন তা নিয়েই আলোচনা হয়। ভাইরাল হয় তার কৌতুক, গান। সিনেমা, মিউজিক ভিডিও, রাজনীতি কিংবা দৈনন্দিন জীবনের নানা ঘটনা; কোথায় নেই হিরো আলম।

থাকেন নিয়মিতই আলোচনা ও বিতর্কে। এবার হিরো আলমের বিরুদ্ধে বরংবার নারী কে;লেং;কা;রী, নারী নির্যাতন ও বউ পিটানোর বিতর্ক উঠলেও এবার উঠেছে প্রতারণার। আজ ৬ এপ্রিল, বুধবার এস আই সুমিত আহম্মেদ এর বরাদ দিয়ে কলাবাগান থানায় অভিযোগ করেছেন সাংবাদিক তারেক আজিজ নিশক। যাহার জিডি নং – ২৮৪।

অভিযোগ নিয়ে কলাবাগান থানার ওসি পরিতোষ চন্দ্র জানান, ‘সাংবাদিক নিশক নামে একজন দুপুর ১২ ঘটিকায় ঘটনার প্রমাণের কাগজাদি নিয়ে হিরো আলম নামক একজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ করলে। থানায় তা সাধারণ ডায়েরি করা হয়।’

হিরো আলমের বিরুদ্ধে অভিযোগকারী তারেক আজিজ নিশক জানান, জিডিতে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘গত ০৭ জুলাই মাসের ২০২১ সালে কোপা- আমেরিকা ফাইনাল খেলা উপলক্ষে “বন্ধন টিভি”র জন্য “ব্রাজিল বনাম আর্জেন্টিনা” মেসিকে নিয়ে “উই লাভ মেসি” শিরোনামে একটি গান তৈরী করি এবং গানটি “বন্ধন টিভি”র ইউটিউব চ্যানেলে আপলোড করি।

পরবর্তিতে বিবাদী মোঃ আশরাফুল আলম সাঈদ ওরফে হিরো আলম। পিতা : মৃত আহম্মেদ আলী, মাতা : মনোয়ারা, সাং এরুলিয়া পল্লীবাড়া, থানা : বগুড়া সদর, জেলা: বগুড়া। বর্তমান ঠিকানা: ৪র্থ তলা (ডান সাইট) রোড নং- ০২, বাসা নং – ১৭, মহানগর প্রজেক্ট, হাতিরঝিল, ঢাকা।

গানটি অনুমতি ব্যতিত “হিরো আলম অফিসিয়াল” এবং “হিরো আলম” নামক ইউটিউব চ্যানেলে আপলোড করেন। পরবর্তিতে তাকে নিষেধ করলে অন্যায় ভাবে আমার চ্যানেলে উল্টো স্ট্রা’ইক দেয় এবং ফোনে বিভিন্ন প্রকার ভ;য়;ভী;তি প্রদর্শন ও আমার চ্যানেলটি ন;ষ্ট করার হু;ম;কি দেন।

উল্লেখ্য যে, উক্ত গানটি গাওয়ানোর জন্য গানটির গীতিকার ও সুরকার “আকাশ নিবির” এর মাধ্যমে বিবাদীকে নগদ অর্থ পরিশোধ করা হয়েছে। এর আগেও বিভিন্ন প্র;তা;রণা ও একাধিক নারী কে;লোকা;রীসহ একাধিক মা;মলায় আ;সা;মী হতে দেখা যায় এই ভাইরাল আশরাফুল আলম সাঈদ ওরফে হিরো আলম।