জোর করে তুলে নিয়ে বিয়ের পর এবার পটুয়াখালীতে ইশরাত জাহান পাখির বিরুদ্ধে বেপরোয়া আচরণের অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী নাজমুল আকন। এরইমধ্যে অভিযুক্ত পাখি গিয়ে উঠেছেন নাজমুলের বাড়িতে।

তাকে নিয়ে মিথ্যা তথ্য ছড়ানো হচ্ছে বলে অভিযোগ তার। আর নাজমুলের দাবি, পাখির বেপরোয়া আচরণের মুখে পুরো পরিবার বাড়িছাড়া। তিনি এখন আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সাহায্যপ্রার্থী।

এ ঘটনাটি এখন পটুয়াখালীর টক অব দ্যা টাউন। অপহরণ ও জোরপূর্বক বিয়ের অভিযোগে নাজমুলের করা মামলাটির তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

সম্প্রতি জোর করে আটকে বিয়ে করার ভিডিওটি ভাইরাল হওয়ার পর ভুক্তভোগী অভিযোগ করেন, মির্জাগঞ্জের ইশরাত জাহান পাখি তার সাঙ্গপাঙ্গদের নিয়ে জোর করে তুলে নিয়ে বিয়ে করেন পটুয়াখালী সরকারি কলেজের শিক্ষার্থী নাজমুল আকনকে। পরে বিষয়টি নিয়ে নাজমুল শরণাপন্ন হন আদালতের।

পটুয়াখালী সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মনিরুজ্জামান জানান, আদালতের নির্দেশে মামলার পর আইন অনুযায়ী এগোচ্ছেন তারা।

প্রসঙ্গত, নাজমুলের অভিযোগ, গত ২৭ সেপ্টেম্বর পটুয়াখালী লঞ্চঘাট এলাকা থেকে সাত-আটজন ব্যক্তি তাকে অজ্ঞাত স্থানে তুলে নিয়ে যায়। জোর করে কাবিননামায় স্বাক্ষর করানোর অভিযোগও করেন তিনি।

পরে পটুয়াখালী সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে তিনি মামলা করেন। বিচারক মামলাটি নথিভুক্ত করতে পটুয়াখালী সদর থানাকে নির্দেশ দেন।