টাঙ্গাইলে এক থ্রি-পিসেই ভা’ঙলো নারীর সংসার, ব্যবসায়ীর জরি’মানা পৌনে ৩ লাখ টাকা

টাঙ্গাইলের বাসাইল উপজেলার বালিয়া গ্রামের মো. রতন মিয়া দীর্ঘদিন ধরে অনলাইনে থ্রি-পিসের ব্যবসা করেন। তার শ্বশুরবাড়ি পার্শ্ববর্তী কাউলজানি ইউপির বাদিয়াজান গ্রামে। ওই গ্রামের পরিচিত এক নারীর কাছে এক হাজার টাকা বাকিতে থ্রি-পিস বিক্রি করেন তিনি।

সেই টাকা আনতে গিয়েই ফাঁ’সলেন রতন। টাকা তো পেলেনই না, উল্টো ওই নারীর সঙ্গে অ’বৈধ সম্পর্কের অভিযোগে গু’ণতে হলো ২ লাখ ৮০ হাজার টাকা জরিমানা। স্বা’মীকে তালাক দিতে বাধ্য করা হয়েছে ওই না’রীকেও।

সোমবার বিকেলে বাদিয়াজান গ্রামের খালেক পীরের বাড়িতে সা’লিস বৈ’ঠকে এ সি’দ্ধান্ত নেয় স্থানীয় মাতব্বররা। ভু’ক্তভো’গী নারী জানিয়েছেন, তার স’ঙ্গে রতনের কোনো সম্পর্ক নেই। থ্রি-পিসের টাকা নিতেই বাড়িতে ঢুকেছিলেন রতন।

কিন্তু তার কথা না শুনে স্বামীকে তালাক দিতে বাধ্য করেছে স্থানীয় মা’তব্বর ও তার শ্ব’শুরবা’ড়ির লোকজন।

ভু’ক্তভো’গী রতন জানান, কাজ শেষে রোববার রাতে তিনি ওই নারীর বাড়িতে যান। এরপরই ওই নারীর শ্ব’শুরবা’ড়ির লোকজন ও স্থানীয়রা তাকে আটকে সা’লিস বৈ’ঠক ডাকে।