মালয়েশিয়ায় ২২ অক্টোবর থেকে বেসরকারি কর্মীদের ঘরে থাকার নির্দেশ

দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার দেশ মালয়েশিয়া মহামারি কোভিড-১৯ এর দ্বিতীয় ঢেউয়ে আশঙ্কাজনক হারে বেড়েছে সংক্রমণ। এমন পরিস্থিতি মোকাবেলায় গত ১৪ অক্টোবর থেকে পুনরায় চালু করা হয়েছে কন্ডিশনাল মুভমেন্ট কন্ট্রোল অর্ডার ( সিএমসিও)।

এই অবস্থায় আরও কঠোর হচ্ছে মালয়েশিয়া কর্তৃপক্ষ। ফলে আগামী ২২ অক্টোবর থেকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত সকল বেসরকারি অফিস কর্মীদের ঘর থেকে বের না হওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন দেশটির সিনিয়র মন্ত্রী দাতো সেরী ইসমাইল সাবরি ইয়াকুব।

আজ ২০ অক্টোবর মঙ্গলবার বিকেলে মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুরে স্থানীয় গণমাধ্যমে দেওয়া এক বিবৃতিতে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

তিনি জানিয়েছেন, এটি কেবল সরকারি প্রস্তাবনা কিংবা পরামর্শ নয়। এটা সরকারি নির্দেশনা। আগামী ২২ অক্টোবর থেকে কুয়ালালামপুর, সেলেঙ্গর, সাবাহ, পুত্রাজায়া এর বেসরকারি অফিসের কর্মচারিগন বাসায় থেকে কাজ করতে হবে।

আর সরকারি কর্মীদের জন্য পাবলিক সার্ভিস এর ডিরেক্টর জেনারেল এ বিষয়ে শ্রীঘ্রই নির্দেশনা দিবেন।

তিনি আরও জানান, অব্যাহত কোভিড-১৯ সংক্রমণ ঠেকাতে জাতীয় সুরক্ষা কাউন্সিলের স্বিদ্বান্তে এই নির্দেশনা জারি করা হয়েছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে কোভিড -১৯ এ আক্রান্ত ৮৬২ জন, মোট আক্রান্ত ২২,২২৫ গত ২৪ ঘন্টায় মারা গেছেন ৩ জন, মোট মারা গেছেন ১৯৩ জন।

গত ১৮ ই মার্চ থেকে টানা লকডাউনে দেশটির জিডিপি ২২ বছরের মধ্যে সর্বনিম্নে পৌঁছে। দেশি ও বিদেশী শ্রমিকরা কাজ হারিয়ে বেকার হয়ে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হন।

তারপর জুলাইয়ের প্রথম দিকে লকডাউন শিথিল হওয়ার পরে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে থাকে এবং মার্কিন ডলারের বিপরীতে মালয় রিংগিতের মান বাড়তে থাকে। শ্রমিকরা তাদের নিজ নিজ কর্মস্থলে ফেরার পরিবেশ তৈরি হয়।

এদিকে ২২ তারিখ থেকে বেসরকারি অফিস কর্মীদের জন্যে নতুন নির্দেশনার খবরে তাদের কপালে চিন্তার ভাঁজ পড়েছে।